প্রোগ্রামারের ক্যারিয়ারঃ ৩ হাজার থেকে ৪ লক্ষ – যেভাবে সম্ভব

সফলতা কে না চায়? আমরা সবাই ক্যারিয়ারে সফলতা অর্জনের চেষ্টা করা। কিন্তু তারপরও আমরা কেউ সফলতা পাই, কেউ পাইনা। সফলতার জন্য ভাগ্য তো অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ, তবে নিজের চেষ্টা না থাকলে শুধু ভাগ্যের দোহাই দেয়া ঠিক নয়।

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে যখন শুনতাম কেউ লাখ টাকা বেতন পায়, তখন রূপকথার গল্প মনে হত। বিশ্বাস করতে পারতাম না। কিন্তু নিজের জীবনে বাস্তবায়ন করতে পারার পর এখন এটা আর অসম্ভব মনে হয় না। কিন্তু এখন যারা নতুন তারা হয়ত আমার মত এখনো এমনই চিন্তা করেন, আর তাই আমার কিছু অভিজ্ঞতা তাদের জন্য শেয়ার করতে চাই।

টিপস ১ – টাকা নিয়ে চিন্তা করার আগে চিন্তা করুন আপনি নিজেকে কিভাবে সবচেয়ে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন। মানুষ দক্ষ লোকই খোঁজে, যার দক্ষতা বেশি, টাকা তার দিকেই আগায়। কোথায় বেশি বেতনে চাকরী পাবেন, তার থেকে বেশি গুরুত্ব দিন, কোথায় বেশি দ্রুত শিখতে পারবেন।

টিপস ২ – কঠিন জিনিষ শেখার ও কঠিন কাজ করার চেষ্টা করুন। সবাই সহজ কাজ করতে চায়, সহজ জিনিষ শিখতে চায়। কাজেই কঠিন কাজ করতে পারা লোকের সংখ্যা কম আর তাদের কদরও বেশি। কাজ কঠিন হলেও এরাই সবচেয়ে কম কাজ করে সবচেয়ে বেশি টাকা আয় করে।

টিপস ৩ – সব সময় সাহায্যের হাত খোলা রাখুন। বেশিরভাগ মানুষ গা বাঁচানোর চেষ্টা করে, তাই কারও উপকার করতে এগিয়ে আসে না, কিন্তু যারা অন্যের উপকার করে, অন্যরাও তাদের উপকার করে আর তাদের জন্য কোন দিক দিয়ে যে সম্ভাবনার দরজা খুলে যায় তা সে নিজেও জানে না।

টিপস ৪ –  যাই করবেন পুরোপুরি করবেন। বেশিরভাগ মানুষ নিজের শেখা বা কাজকে সম্পূর্ণ করে না। কিছুদুর যাবার পর আগ্রহ হারিয়ে অন্য কিছুতে চলে যায়। কিন্তু যারা নিজেদের শেখা ও কাজ সম্পূর্ণ করে, একসময় তাদের প্রোফাইল অনেক ভারি হয়ে যায়।

টিপস ৫ – সময়কে পুরোপুরি কাজে লাগান। আমাদের জীবনে সময় খুবই দুর্লভ। যেনতেন ভাবে সময় নষ্ট না করে দক্ষতা অর্জনের জন্য সময়কে কাজে লাগান। প্রতিটি মিনিটকে গুনে গুনে ব্যাবহার করুন।

টিপস ৬ – নতুন কিছু করার চেষ্টা করুন। গতানুগতিক ভাবে সবাই কাজ করে। আপনি এর বাইরে নতুন কি করতে পারেন তা চেষ্টা করুন। আপনার কাজ কিভাবে আরও উন্নত করা যায় সেই চেষ্টা করুন। যদি কেউ আপনাকে উন্নত করতে না বলে, তাও নিজে থেকেই এটা করুন। এতে আপনি নিজেকে সবার থেকে এগিয়ে রাখতে পারবেন আর অন্যরা আপনাকে বিশেষভাবে মূল্যায়ন করবে।

টিপস ৭ – বই পড়া, অডিও ট্রেনিং, ভিডিও ট্রেনিং বা ট্রেনিং কোর্স, যেভাবেই সম্ভব নিয়মিত আরও নতুন নতুন জিনিষ শেখার চেষ্টা করুন। যত জানবেন, আপনার কাজ তত উন্নত হবে। চাকরী পাওয়ার পর শেখার আগ্রহ হারাবেন না। বরং আরও শিখতে থাকুন, দেখবেন আপনি তাহলে খালি উপরের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছেন।

 

মোঃ জালাল উদ্দিন,

প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও, ডেভস্কিল.কম

 

ডেভস্কিলের কিছু বিশেষ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স –

  1. Software Design Patterns for Software Engineers

  2. Object Oriented Programming in Practice

  3. Full Stack Asp.net MVC Development

  4. C# Programming Language

You may also like...

9 Responses

  1. hossain says:

    thank u brother. plz pray for me . now I am stay in disapointed at my present condition.

    • MD. Jalal Uddin says:

      মনে রাখবেন হতাশাই সবচেয়ে বড় বিপদ। হতাশ না হয়ে জীবনকে পরিবর্তন করার জন্য আপনাকে কি করতে হবে, সেটা চিন্তা করুন ও সেভাবে পূর্ণ উদ্যমে কাজ করে যান। হতাশ হয়ে বসে থাকলে জীবনে কিছুই বদলাবে না, হতাশা শুধু বাড়বেই।

  2. Rejaul says:

    অনেক হতাশার মাঝে আছি। আমার অনেক বন্ধু ভাল মানের পাবলিক & প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে সিএসই নিয়ে পড়ছে। আমি তেমন ভাল প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে সিএসই নিয়ে ভর্তি হতে পারিনি টাকার অভাবে। আমার বন্ধুরা তাদের ক্লাস কিভাবে হয়। পড়ালেখা কিভাবে করায় তা আমার সাথে শেয়ার করে, যা আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি পাচ্ছিনা। এইসব শুনে খুবিই হতাশ। মনে হয় তারা ভাল মানের ইঞ্জিনিয়ার হবে। আমি হতে পারবোনা। খুব অসস্থিকর অবস্থায় আছি। এর জন্য ভাল করে পড়া লেখাও হয়না। ফ্রেন্ডসদের কমেন্টস হলো ” তুই এই বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হলি কেন, অন্য কোথাও হলে ভাল হতো” এই টাইপের। যা শুনে হতাশা আরো বেরে যায়। এই অবস্থায় আমার কি করা উচিত ভেবে পাচ্ছিনা।

    • MD. Jalal Uddin says:

      ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়লে কিছু সুবিধা নিশ্চয় পাওয়া যায়, কিন্তু যেহেতু এটা আপনার জন্য সম্ভব হয়নি, হতাশ হলে চলবে না। একটা কথা সত্যি যে ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে যদি ২০ টা কোর্স করায়, ১০+ ই সরাসরি কাজে লাগে না। যেমন একাউন্টিং, ফিজিক্স, ইংলিশ (যদি আপনি আগে থেকেই জানেন) ইত্যাদি অনেক কিছুই আসলে সরাসরি কাজে লাগে না, (তবে আমি বলছি না যে এগুলোর কোন দরকার নেই) কিন্তু যেহেতু ৪ বছরের কোর্সে এগুলো আছে, তাই এগুলো করতেই হয়। কিন্তু মূল প্রয়োজন যে প্রোগ্রামিং কোর্সগুলো এগুলো ভালভাবে করতে পারলে আসলে পার্থক্য তেমন থাকে না। প্রবলেম হোল, খারাপ ইউনিভার্সিটি তে এগুলোও ভালো করে করা যায় না। এক্ষেত্রে আপনি কারও সাহায্য নিতে পারেন, এই বিষয়গুলো ভালোভাবে বুঝার জন্য। বন্ধুদের হেল্প নিতে পারেন, তবে আজকাল কারওই তেমন সময় নেই, তাই তাদের আশায় বসে থাকবেন না। নিজে ইন্টারনেট থেকে শিখতে পারেন, বই পরতে পারেন, কিছু কোর্সও করতে পারেন। আমার মনে হয় আপনি এখান থেকে বের হয়ে আসতে পারেন। কারণ প্রোগ্রামিং পুরোটাই প্রেক্টিকাল কাজ। এখানে আপনি শিখতে পারলেই আর কাজ করতে পারলেই হল।

  3. Mahmud Babul says:

    NIce article, Thank you

  4. Tushar says:

    is it possible to run full stack web development with python and django course?

    • MD. Jalal Uddin says:

      Not sure what you mean, are you suggesting us to start this type of course? We will start such course in shaa Allah.

  5. Md. Nazirul Mobin says:

    আমি বিএসসি শেষ করলাম। বাট কোন জব পাইতেসিনা। আমি HTML, CSS, Bootstrap, Javasript, PHP(oop), Jquery, WordPress. PDO. etc পারি। এজন্য হতাশার মধ্যে আছি।

    • MD. Jalal Uddin says:

      Market is very competitive. If you do not get job that means you have less skill. The thing you need to do is learn more and get more skill. Once you have enough skill you will get plenty of jobs.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *